অভয়াশ্রমের ছয় জেলায় মাছ শিকার নিষিদ্ধ থাকলেও ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশের পসরা মাওয়া মৎস্য আড়তে। সামনে পহেলা বৈশাখ তাই করোনার কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেও ছুটির দিনে চাহিদা বেড়েছে। বড় ইলিশ বিক্রি হচ্ছে কেজিতে এক হাজার ৫০০ টাকা পর্যন্ত।

পদ্মার রুপালি ইলিশে সয়লাব মুন্সিগঞ্জের মাওয়া মৎস্য আড়ত। ঝাঁকে ঝাঁকে তাজা ইলিশ এখানে নিয়ে আসেন জেলেরা। হাঁকডাকে বিক্রি হয় পদ্মার ইলিশ। রমজান ও বাংলা নববর্ষ সামনে রেখে করোনার বিধিনিষেধের মধ্যেই বেচাকেনার ধুম। ছুটির দিনে ক্রেতা বেশি তাই দামও বেশ চড়া।

বড় ইলিশ কেজি প্রতি দাম এক হাজার ৪০০ থেকে এক হাজার ৫০০ টাকা। আর ৭০০ গ্রাম থেকে ৯০০ গ্রামের নতুন ইলিশ বিক্রি হয় ৮০০ থেকে হাজার টাকায়।

ক্রেতা-বিক্রেতারা বলেন, এ সপ্তাহে মাছের দাম অনেক বেশি। রোজা আর পহেলা বৈশাখের কারণে দাম বেড়ে গেছে।

প্রচণ্ড ভিড়ে সড়ক সরু ও আড়তে জায়গা কম হওয়ায় গাদাগাদি অবস্থা।

এ প্রসঙ্গে মাওয়া মৎস্য আরতের সাধারণ সম্পাদক মো. হামিদুল ইসলাম বলেন, আর এক দেড় বিঘা জায়গা বাড়িয়ে দিলে আমাদের ব্যবসা করতে অনেক সুবিধা হতো।

অভয়াশ্রমগুলোতে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত সব ধরনের মাছ শিকার এবং ৩০ জুন পর্যন্ত সারাদেশে জাটকা শিকার নিষিদ্ধ রয়েছে।