আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন বিশ্বব্যবস্থায় পশ্চিমা একাধিপত্যবাদের যুগ শেষ হয়ে গেছে। বার্তা সংস্থা ইরনা জানিয়েছে ড. জাওয়াদ জারিফ তাজিকিস্তানে চলমান ‘হার্ট অব এশিয়া’ সম্মেলনের অবকাশে সিকা’র নির্বাহী সম্পাদক কাইরাত সারিবাই’র সঙ্গে আলাপকালে এ মন্তব্য করেন। সিকা হলো কনফারেন্স অন ইন্টারেক্টেশন অ্যান্ড কনফিডেন্স বিল্ডিং মেজারস ইন এশিয়া। ড. জারিফ ওই মন্তব্যের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ব্যবস্থার বর্তমান সমীকরণে এশিয় অঞ্চলের দেশগুলোর গুরুত্বের ওপরও জোর দেন। পার্সটুডে।

সিকা’র আঞ্চলিক বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে ইরানের ভূমিকার প্রশংসা করে মি. সারিবাই ড. জাওয়াদের কাছে এই সংস্থার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা ব্যাখ্যা করেন। পক্ষান্তরে ড. জারিফও সিকা’কে শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে ইরানের সমর্থন ঘোষণা করেন এবং এই সংস্থার সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে সহযোগিতা জোরদারের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। ইরানের সঙ্গে পরমাণু বিষয়ক আলোচনাসহ সিরিয়া বিষয়ক আস্তানা শান্তি প্রক্রিয়ায় কাজাখিস্তানের ভূমিকার প্রশংসা করেন।

ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী গতকাল সন্ধ্যায় দু’দিনের সফরে তাজিকিস্তানের রাজধানী দুশানবে’র আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছলে সেদেশের সরকারী কর্মকর্তারা তাঁকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাগত জানায়। সম্মেলনে অংশ নেয়ার পাশাপাশি ড. জারিফ তাজিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন।

১৫ সদস্য বিশিষ্ট সংস্থা হার্ট অফ এশিয়ায় ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরান ছাড়াও রয়েছে আফগানিস্তান, তাজিকিস্তান, পাকিস্তান, চীন, রাশিয়া, ভারত, কাজাখিস্তান, কিরঘিজস্তান, তুর্কমেনিস্তান, উজবেকিস্তান, তুরস্ক, আজারবাইজান, সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ডেনমার্ক, মিশর, ফ্রান্স, ফিনল্যান্ড, জার্মানি, ইরাক, ইতালি, জাপান, নরওয়ে, পোল্যান্ড, স্পেন, সুইডেন এবং যুক্তরাজ্য ‘হার্ট অফ এশিয়া’র প্রতি তাদের সমর্থন ঘোষণা করেছে।

২০১১ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত হার্ট অফ এশিয়া সম্মেলন ইস্তাম্বুল, কাবুল, আলমাতি, বেইজিং, ইসলামাবাদ, অমৃতসর, বাকু এবং ইস্তাম্বুলে অনুষ্ঠিত হয়েছে।