আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বলিভিয়ার সাবেক অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট জেনিন অ্যানজেকে আটকের পর গতকাল (রোববার) প্রথমবারের মতো আদালতে তোলা হয়েছে এবং ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে তাকে দেখানো হয়। ২০১৯ সালে দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্ট ইভো মোরালেসের বিরুদ্ধে উস্কানি দিয়ে বিক্ষোভ সৃষ্টি এবং সামরিক অভ্যুত্থান সংগঠনের অভিযোগে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পার্সটুডে।

গতকাল আদালতে শুনানির সময় অ্যানেজ ও তার সরকারের সাবেক জ্বালানি এবং বিচারমন্ত্রী রোদ্রিগো গুজম্যান ও আলভারো কইমবারাকে বিক্ষোভে উসকানি, সন্ত্রাসবাদ এবং ষড়যন্ত্রের জন্য অভিযুক্ত করা হয়।

শুনানিতে পাবলিক প্রসিকিউটর হ্যারোল্ড জারান্ডিলা বলেন, ২০১৯ সালের অক্টোবর মাসে অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনের মাধ্যমে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ইভো মোরালেসকে পদত্যাগে বাধ্য করার জন্য বিবাদীরা দেশের নিরাপত্তা বাহিনীকে ব্যবহার করেছেন। তিনি আরো বলেন, সরকারি কর্মকর্তারা রাজনৈতিক শূন্যতার সুযোগ নিয়ে জেনিন অ্যানেজকে অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট বানিয়েছিল।

অ্যানেজকে শনিবার ভোরের দিকে তার জন্ম শহর ত্রিনিদাদ থেকে আটক করা হয় এবং রাজধানী লাপাজে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

আটকের পর অ্যানেজ টুইটার পোস্টে বলেছিলেন, তার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক প্রতিশোধ শুরু হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং অর্গানিজেশন অব আমেরিকান স্টেটসকে পর্যবেক্ষণ মিশন পাঠানোর আহ্বান জানিয়েছেন।

গতকাল আদালতে পাবলিক প্রসিকিউটর আরো বলেছেন, জেনিন দেশ ছেড়ে চলে যেতে পারে বলে ঝুঁকি রয়েছে। সেজন্য তাকে এবং তার মন্ত্রিসভার সদস্যদেরকে ছয় মাসের জন্য আটক রাখা জরুরি।

ইভো মোরালেসকে উৎখাতের সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেছেন সাবেক এই প্রেসিডেন্ট।