সাতক্ষীরা শ্যামনগর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউল হক দোলনের পরিবারের সদস্যরা মাদক সেবন ও মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত এই অভিযোগ দীর্ঘদিনের। তবে সম্প্রতি আতাউল হক দোলনের কনিষ্ঠ পুত্র ফাহিম রাব্বি-র মাদক সেবনের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্র নিন্দার ঝড় ওঠে।
এলাকাবাসির মতে, চেয়ারম্যান আতাউল হক দোলনের পরিবারের সদস্যরা দীর্ঘদিন মাদক সেবন ও মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার পরেও তিনি নিয়ন্ত্রণ করার কোনো ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ না করার কারণেই মাদকের ব্যপকতা ভায়াবহ আকার ধারণ করেছে।

সাতক্ষীরা-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এ.কে ফজলুল হকের পরিবারের উত্তরসূরীদের মাদক সেবন ও ব্যবসার ঘটনা এখন শ্যামনগরে টক অব দ্যা টাউন। এতোদিন কিছুটা রাখঢাক থাকলেও সয়ং উপজেলা চেয়ারম্যানের ছেলের মাদকের সাথে যুক্ত থাকার ছবি প্রকাশ্যে আসলে এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

এর আগে চেয়ারম্যান আতাউল হক দোলোনের আপন মামা ও চাচাতো ভাইকে ২৩ বোতল ফেন্সিডিল সহ আটক করেছিলো শ্যামনগর থানা পুলিশ। তবে চেয়ারম্যান দোলোনের ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে প্রতিবারই পার পেয়ে যায় তার পরিবারের মাদক ব্যবসায়ি সদস্যরা। এক্ষেত্রে চেয়ারম্যান দোলোর নিরবতাই প্রধান শক্তি বলে মনে করেন এলাকাবাসি।

এছাড়াও সুধী সমাজ এবিষয়ে শঙ্কা প্রকাশ করে জানিয়েছেন, এভাবে রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে প্রভাবশালী রাজনৈতিক পরিবারের সদস্যদের মাদক সেবন ও বিক্রয়ের ঘটনা বারবার ধামাচাপা দেওয়ায় সুধী সমাজ তাদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত। তাই আর যেনো কেউ পার পেয়ে না যায় সেজন্য ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন তারা।