ইউরোপ থেকে বাংলাদেশে আসা যাত্রীদের ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। সোমবার (২৯ মার্চ) দিনগত রাত ১২টা থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিভিল এভিয়েশন চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান। এছাড়া যাত্রীদের নিজ খরচে হোটেলে থাকতে হবে বলেও জানান তিনি। আরটিভি।

সিভিল এভিয়েশন চেয়ারম্যান আরও জানান, অন্য দেশ থেকে করোনা নেগেটিভ সনদ নিয়ে আসা যাত্রীদের ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। প্রশাসনের মাধ্যমে হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হবে।

এদিকে দেশে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এড়াতে ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। এর অংশ হিসেবে দেশের বিমানবন্দর ও এয়ারলাইন্সসহ সংশ্লিষ্টদের জন্য নতুন নির্দেশনাসহ প্রজ্ঞাপন জারি করবে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)। সোমবার রাতেই এই প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

বেবিচকের চেয়ারম্যান জানান, সরকার বিদেশ ফেরত সব যাত্রীর ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে রাখার নির্দেশনা দিলেও বর্তমানে তা সম্ভব নয়। প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনের ধারণ ক্ষমতাও অনেক কম। তবে শুধু যুক্তরাজ্যসহ ইউরোপের দেশ থেকে যারা আসবেন তাদের জন্য ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক করা হবে।

এছাড়া সম্প্রতি ওয়াইড বডি উড়োজাহাজে ৩০০ যাত্রী নেয়ার অনুমতি দেয়া হলেও করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় আবার পূবের্র মতো ২৬০ জন যাত্রী পরিবহনের নির্দেশনা দেয়া হবে। ফ্লাইটের ভেতরে সব যাত্রীকে মাস্ক পরতে হবে। যেসব উড়োজাহাজে এক সারিতে ৩টি আসন রয়েছে, সেক্ষেত্রে মাস্কের পাশাপাশি মাঝখানের যাত্রীকে ফেস শিল্ডও পরা বাধ্যতামূলক করা হবে।